ঢাকা মঙ্গলবার, ১৮ই জুন ২০২৪, ৫ই আষাঢ় ১৪৩১


কাটলে ‘রক্ত’ বের হয় যে গাছ থেকে


প্রকাশিত:
২৪ অক্টোবর ২০২৩ ১৯:৩৭

আপডেট:
১৮ জুন ২০২৪ ০৬:০৬

আমাদের শরীরের কোনো অংশ কেটে গেল রক্ত বের হয়। কিন্তু যদি দেখেন একটি গাছ কাটার পর সেখান থেকে লাল রক্তের মতো পদার্থ বের হচ্ছে, চমকে উঠবেন নিশ্চয়! কিছুটা ভয়ও পেয়ে যেতে পারেন হয়তো। কিন্তু ব্লাডউড নামে পরিচিত গাছটির গুঁড়ি বা ডাল কাটলে সত্যি সেখান দিয়ে ঘন লাল রক্তের মতো পদার্থ বের হয়ে আসতে থাকে।

তবে রক্তের মতো দেখতে হলেও এটা কিন্তু রক্ত নয়। এটা একধরনের উদ্ভিদ রস। আফ্রিকার দক্ষিণ অঞ্চলে পাওয়া এই গাছের বৈজ্ঞানিক নাম টেরোকারপাস অ্যাঙ্গোলেনসিস। তবে সাউথ আফ্রিকান ন্যাশনাল বায়োডাইভারসিটি ইনস্টিটিউট জানাচ্ছে, এটি আরও কিছু নামেও পরিচিত। যেমন—ব্লাডউড, কিয়াত, পেডল উড, বুনো টিক বা সেগুন ইত্যাদি। এ ছাড়া আফ্রিকার বিভিন্ন স্থানীয় ভাষায় আরও নানা নামে পরিচিত এটি।

টেরোকার্পাস অ্যাঙ্গোলেনসিস গাছের ছবিগুলো দেখলে যে কেউ এর ব্লাডউড নামের যৌক্তিকতা বুঝতে পারবেন। ঝরে পড়া লাল রস দেখে মনে হয় যে কাটা অংশ থেকে রক্তপাত হচ্ছে। কিন্তু এটি আসলে ট্যানিন-সমৃদ্ধ  উদ্ভিদ রস। বেশির ভাগ গাছের বিভিন্ন অংশ, বিশেষ করে পাতায় ১২ থেকে ২০ শতাংশ ট্যানিন থাকে। সে তুলনায় ব্লাডউডের রসে ট্যানিনের পরিমাণ ৭৭ শতাংশ।

এই ট্যানিনই বুনো সেগুনের উদ্ভিদ রসকে লাল রং পেতে সাহায্য করে। তবে এর আরেকটি উদ্দেশ্য আছে। এদের স্বাদ এমন কষযুক্ত যে প্রাণীরা এটা তেমন পছন্দ করে না। কিন্তু যদি তারা আবার এই উদ্ভিদ রস খাওয়ার চেষ্টা করে, তখনো ট্যানিন বিশেষ এক ভূমিকা রাখে। ট্যানিন প্রাণীদের সঠিকভাবে খাবার হজম করতে বাধা দেয়। অর্থাৎ, এর ট্যানিন-সমৃদ্ধ এই উদ্ভিদ রসের প্রতি আগ্রহ হারাবে। সুতরাং ব্লাডউডের রক্তের মতো রসকে এদের একটি প্রাকৃতিক প্রতিরক্ষাব্যবস্থাও বলতে পারেন।

সানবি জানায়, ব্লাডউড গাছটি প্রধানত উষ্ণ এলাকায় জন্মায়। দক্ষিণ আফ্রিকার উত্তর-পূর্ব অংশ থেকে শুরু করে জিম্বাবুয়ে, উত্তর বতসোয়ানা, মোজাম্বিক, নামিবিয়া প্রভৃতি দেশে জন্মে। এটি ঝোপঝাড় ও বড় গাছের এলাকা—যেকোনো জায়গায়ই জন্মায়, তবে এর জন্য প্রতিবছর ৫০০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত জরুরি। পাথুরে ঢাল বা পানি নিষ্কাশন হয় এমন গভীর, বালুকাময় মাটি এই গাছের জন্য উপযোগী।

গাছটির নানা ধরনের ব্যবহার আছে। এর লাল রক্তরস রং হিসেবে ব্যবহারের পাশাপাশি কোনো কোনো এলাকায় জীব-জন্তুর চর্বির সঙ্গে মিশিয়ে মুখ ও শরীরে দেওয়ার প্রসাধনী তৈরি করা হয়।

আফ্রিকার স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে এর লাল রঙের কারণে নানা ধারণার জন্ম নিয়েছে। তাঁরা মনে করেন, রক্তের সঙ্গে সম্পর্কিত বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় এটি খুব ভালো কাজ করে। দাদ, ছুরিকাঘাতের ব্যথা, চোখের সমস্যা, ম্যালেরিয়া, ব্ল্যাক ওয়াটার জ্বর এবং পেটের সমস্যার মতো বিষয়গুলোতেও গাছের নির্যাস ব্যবহার করে চিকিৎসা করেন স্থানীয়রা। দক্ষিণ আফ্রিকায় গাছটিকে সংরক্ষিত বৃক্ষ প্রজাতির অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

পাতাঝরা এই গাছটি প্রায় ১৫ মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়। গাছ থেকে পাওয়া কাঠ আসবাবপত্র ও স্মারক তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। এর কাঠের ভালো দিক হলো এটি উইপোকা প্রতিরোধী। স্বাভাবিকভাকবেই গাছটির ঔষধি উপকারিতা এবং আসবাবপত্রে ব্যবহার স্থানীয়দের জন্য একে গুরুত্বপূর্ণ করে তুলেছে।

 তবে অন্য সব গুণাগুণ বাদ দিয়ে এর আশ্চর্য লাল রস যে ব্লাডউডকে অন্য গাছদের থেকে আলাদা জায়গায় নিয়ে গেছে তাতে সন্দেহ নেই।


বিষয়: bloodwood tree



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top